শুক্রবার   ২৪ মে ২০২৪   জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪৩১   ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সুদানে অনিশ্চয়তায় দেড় হাজার বাংলাদেশি

সাপ্তাহিক আজকাল

প্রকাশিত : ০৩:৪৩ এএম, ২৯ এপ্রিল ২০২৩ শনিবার


আজকাল ডেস্ক
সুদানের সংঘাতময় পরিস্থিতিতে আটকে রয়েছেন প্রায় দেড় হাজারের বেশি বাংলাদেশি। তাদের দেশে আনার প্রক্রিয়া চলছে জানালেও কীভাবে এবং কবে আনা হবে, সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন সুদানে নিযুক্ত বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত তারেক আহমেদ। তিনি জানান, পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলেই তাদের নিরাপদে সরানোর ব্যবস্থা করা হবে।
তারেক আহমেদ জানান, চলতি মাস বা আগামী মাসের প্রথম দিকে সুদানের বাংলাদেশিদের সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এখনো কিছু চূড়ান্ত হয়নি। তারা এ ব্যাপারে কাজ করছেন। এরই মধ্যে সরতে আগ্রহীদের তথ্য সংগ্রহ চলছে। এরই মধ্যে ৫০০ জনের মতো বাংলাদেশি দেশে ফেরার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।
খারতুমের পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, সুদানে বাংলাদেশ দূতাবাস ও বাংলাদেশ হাউস এলাকার নিরাপত্তা এবং সুরক্ষা পরিস্থিতি এখনো অস্থিতিশীল। তারা এখনো দূতাবাসে প্রবেশ করতে পারেননি। দূতাবাসের কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা এখনো রাজধানীর বাইরে নিরাপদ স্থানে আছেন। তারেক আরও জানান, আটকে পড়া বাংলাদেশিদের বাসে করে পোর্ট অব সুদানে নেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। তারপর সেখান থেকে জাহাজে সৌদি আরব হয়ে দেশে ফেরানো হবে। এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আফ্রিকা অনুবিভাগের মহাপরিচালক মো. তারিকুল ইসলাম বলেন, সুদান থেকে দেশে ফিরতে চান, এমন বাংলাদেশিদের কোন রুটে কীভাবে নিরাপদে সরানো হবে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলেই তাদের সরিয়ে আনার কাজ শুরু হবে।
উল্লেখ্য, সুদানের সেনাবাহিনী ও আধাসামরিক বাহিনী র‌্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেসের (আরএসএফ) মধ্যে সংঘর্ষে চার শতাধিক প্রাণহানি হয়। জানা গেছে, সুদানের সংঘাতময় পরিস্থিতিতে ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, মালয়েশিয়া, মিশর, পাকিস্তান, কানাডাসহ অনেক দেশের নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়া হয়। পশ্চিমা দেশগুলো তাদের দূতাবাস সরিয়ে নিলেও ভারত, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশসহ আরও কয়েকটি দেশের দূতাবাস এখনো চালু রয়েছে। এখনো কোনো বাংলাদেশিকে সরিয়ে নেওয়া হয়নি। সেখানকার বাংলাদেশিরা সীমান্তবর্তী বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিলেও খাদ্য, পানি ও আর্থিক সংকটে রয়েছেন।