বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০২৪   জ্যৈষ্ঠ ৯ ১৪৩১   ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

‘জবাব দেয়ার কথা ভাবছি না’

সাপ্তাহিক আজকাল

প্রকাশিত : ০৩:০০ এএম, ১৮ মার্চ ২০২৩ শনিবার

অ্যাম্বাসেডর ওসমানের উকিল নোটিশ প্রসঙ্গে সিদ্দিকুর রহমান  

 
আজকাল রিপোর্ট
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড.সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিয়ে লিগাল নোটিশ পাঠিয়েছেন অ্যাম্বাসেডর ওসমান সিদ্দিক। র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে ড. ইউনুস ও ড.ওসমান সিদ্দিকের হাত রয়েছে বলে বিভিন্ন সভা সমাবেশে দেয়া ড.সিদ্দিকুর রহমানের বক্তব্য দেশে ও যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বাংলা ভাষাভাষী বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। সর্বশেষ তিনি নিউইয়র্কে বাংলাদেশ কনস্যুলেট অফিসে বক্তৃতা করেন। সেখানে তিনি বলেন, ড.ইউনুস ও ড.ওসমান সিদ্দিকীর কারনেই যুক্ত্রাষ্ট্র সরকার র‌্যাব নিষিদ্ধ করেছে।
এ বক্তব্যকে অসত্য ও বিভ্রান্তিকর আখ্যায়িত করে ড.ওসমান সিদ্দিকীর আইনজীবি কার্ল এইচ জোসেফ-ব্লাক উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন ড.সিদ্দিকুর রহমানের কাছে। উকিল নোটিশের অনুলিপি ঢাকার পরররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ওয়াশিংটনস্থ বাংলাদেশে দূতাবাস, ইউনাইটেড স্টেট ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট ও নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে পাঠানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রী আব্দুল মোমেন ও যুক্তরাষ্ট্রস্থ বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরানের উপস্থিতিতে ড. সিদ্দিুকুর রহমান মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য দিয়েছেন। এতে এটর্নি জোসেফের ক্লায়েন্ট ড. ওসমান সিদ্দিকের মানহানির ঘটনা ঘটেছে। ড. ওসমান সিদ্দিকী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. ওসমান গনির সন্তান। ক্লিনটন প্রশাসনের আমলে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। উল্লেখ্য তিনি বাংলাদেশের সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও বিএনপি নেতা ড. ওসমান ফারুকের ভাই।
উকিল নোটিশে বলা হযেছে, আগামীতে ওসমান সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে এ ধরনের মানহানিকর ও অসন্মানজনক বক্তব্য প্রদান থেকে সিদ্দিকুর রহমানকে বিরত থাকতে হবে। কনস্যুলেটে দেয়া অসম্মানজনক ও মিথ্যা বক্তব্য আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যহার করতে হবে। তা প্রত্যাহার করে ঢাকার পরররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ওয়াশিংটনস্থ বাংলাদেশে দূতাবাস, ইউনাইটেড স্টেট ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট , নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট ও ওসমান সিদ্দিকের এটর্নি অফিসে পাঠাতে হবে। আগামী ২০ মার্চের মধ্যে ড. সিদ্দিকুর রহমান তা করতে ব্যর্থ হলে ড.ওসমানের পক্ষে ল’ ফার্ম নিউইয়র্ক স্টেট কোর্টে মামলা করবে।
লিগাল নোটিশ প্রশ্নে ড.সিদ্দিকুর রহমান প্রতিবেদককে বলেন, ৮ মার্চ আমি নোটিশটি গ্রহণ করেছি। এম্বাসেডর ওসমান সিদ্দিকী সাহেবের আইনজীবি আমাকে আইনী নোটিশটি পাঠিয়েছেন। যখন ওয়াশিংটন পোষ্টে ড. মোহাম্মদ ইউনুসের সাফাই গেয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ৪০ জনের বিবৃতি বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ পেয়েছে, ঠিক তখনই ওসমান সিদ্দিকী আমাকে আইনী নোটিশ পাঠিয়েছেন। আমি দেশবাসীকে বলতে চাই এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জানাতে চাই, আইনী নোটিশ ও ওয়াশিংটন পোষ্টের বিজ্ঞাপন একই সুত্রে গাঁথা। আমি বারবার এ কথাটিই বলে এসেছি। আর উকিল নোটিশের জবাবের কথা ভাবছি না।